,

যাদের মিথ্যা সংবাদ ছাপানোর উদ্দেশ্য নেই, তাদের ভয়েরও কিছু নেই: জয়

সংসদে পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল-২০১৮ এর ৯টি ধারা নিয়ে সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ ও দাবির কঠোর সমালোচনা করেছেন প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ও তার তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

তিনি বলেছেন, যেসব সাংবাদিকের মিথ্যা সংবাদ ছাপানোর উদ্দেশ্য নেই, তাদের ভয়েরও কিছু নেই।

সজীব ওয়াজেদ জয় তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এ কথা বলেন।

জাতীয় সংসদে সদ্য পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সম্পর্কে গতকাল রোববার নিজের মতামত তুলে ধরেন তিনি।

সজীব ওয়াজেদ জয়ের ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরা হল-

‘কিছু মহল থেকে নতুন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সমালোচনা করা হচ্ছে। তাদের মূল আপত্তির জায়গা আইনটির বিশেষ কিছু ধারা। আইসিটি ডিভিশন যখন আইনটির খসড়াগুলো তৈরি করে তখন সেগুলো দেখার সুযোগ আমার হয়েছিল। সবার সুবিধার্থে এ বিষয়ে আমার মতামত তুলে ধরছি-

সরকারি অফিসের কম্পিউটারে হ্যাকিং এবং গোপনে নজরদারির ক্ষেত্রে আইনের দরকার জনগণের তথ্য ও গোপনীয়তা রক্ষার স্বার্থেই। এ আইনের আগে হ্যাকিং ও তথ্য চুরির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কোনো আইনি ভিত্তি দেশে ছিল না। তা হলে এ আইনের সাহায্য ছাড়া কীভাবে হ্যাকিং ও তথ্য চুরির বিচার হবে?

সরকারি কম্পিউটারে জনগণের জাতীয় পরিচয়পত্রসহ নাগরিকদের অনেক রকম তথ্য সংগৃহীত থাকে। ব্যাংক হিসাব, স্বাস্থ্যবিষয়ক তথ্য, জমির রেকর্ড- সব কিছুই আজকাল ডিজিটাইজ করে সংগ্রহ করা হচ্ছে। এগুলো যদি হ্যাক করা হয়, তার দায়ভার কে নেবেন?

দায় কিন্তু তখন সরকারের ওপরই আসবে। তাই তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা হিসেবে আমি এ আইন প্রণয়নের সুপারিশ করি হ্যাকিং ঠেকানোর জন্য।

শুধু তাই নয়, সরকারি অফিসে ডিজিটাল নজরদারির মাধ্যমে জনগণের তথ্যসংবলিত বিভিন্ন দলিল বা নথির ছবি বা ভিডিও তোলাও সম্ভব। গোপনে অডিও রেকর্ডিংয়ের মাধ্যমেও নাগরিকদের অনেক সংবেদনশীল তথ্যের আলোচনা শুনে ফেলা সম্ভব, এমনকি ওয়াইফাই পাসওয়ার্ডও।

এর মাধ্যমে হয়তো একজন সাংবাদিকের কাজ কঠিন হয়ে যেতে পারে। কিন্তু কারও দুর্নীতি ফাঁস করার জন্য একজন সাংবাদিকের কি সরকারি অফিসের কম্পিউটার হ্যাক করে নাগরিকদের সংবেদনশীল তথ্য চুরির অধিকার থাকা উচিত?

পৃথিবীর কোনো দেশই কিন্তু বেআইনিভাবে সাংবাদিকদের তথ্য সংগ্রহ করার সুযোগ দেয় না। এমনকি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নও না। সরকারি অফিসে গোপনে নজরদারি করা সব দেশেই আইনবহির্ভূত, সাংবাদিকদের জন্যও। সাংবাদিকদের তাদের তথ্য অন্যান্য সূত্র থেকে জোগাড় করতে হয়।

যেসব কূটনৈতিক মিশন এ আইনটি নিয়ে আপত্তি তুলেছে, তাদের আমি একটি প্রশ্ন করতে চাই- সাংবাদিকরা কি আপনাদের দূতাবাসের ভেতরে গোপনে নজরদারি করার যন্ত্রপাতি নিয়ে আসতে পারবেন?

আরেকটি আপত্তির জায়গা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতিকরণ নিয়ে যে ধারাটি, সেটি নিয়ে। আমরা দেখেছি কিভাবে ১৫ আগস্ট ১৯৭৫-এর পর বিএনপি-জামায়াত আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের ঘটনাবলিকে বিকৃত করার অপপ্রয়াস চালিয়েছে।

এ বিকৃতিকরণের পেছনে কারণ ছিল- যুদ্ধাপরাধীদের মন্ত্রী বানানো ও বঙ্গবন্ধুর খুনিদের প্রতিষ্ঠিত করা। এসবের বিরুদ্ধে কি কোনো আইন থাকা উচিত নয়? আমরা কি ভবিষ্যতে আবারও এই অপরাজনীতির পুনরাবৃত্তি দেখতে চাই?

আইনটির এ ধারার বিরুদ্ধে যারা বলছেন, তারা আসলে বাঙালি নন। তারা গোপনে জামায়াত সমর্থক রাজাকার।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের হলোকাস্ট ডিনায়াল আইনের ওপর ভিত্তি করেই এ ধারাটি প্রণয়ন করা হয়েছে।

১৬ ইউরোপিয়ান দেশে হলোকাস্টে স্বীকৃত সংখ্যা থেকে কম মানুষ মারা গেছে এই কথা বললেও কারাদণ্ড দেয়া হয়। এর মধ্যে অনেক দেশ আছে, যাদের দূতাবাসগুলো বাংলাদেশে আমাদের এই আইন নিয়ে আপত্তি তুলেছে।

যেসব ইউরোপিয়ান দূতাবাস আমাদের এ আইন নিয়ে আপত্তি তুলেছেন, তাদের প্রতি আমার প্রশ্ন- আপনাদের হলোকাস্ট ডিনায়াল আইন থাকতে পারলে আমাদের কেন একই রকম আইন থাকতে পারবে না?

আমাদের আইন যদি জাতিসংঘসহ অন্যান্য মানবাধিকারের মানদণ্ডের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ না হয়, তা হলে আপনাদেরগুলো কীভাবে হয়? এ ধারাটিতে কোনো ধরনের সংশোধন সম্ভব নয়।

এই আইনের কিছু অংশ অনলাইনে মিথ্যা বা গুজবের মাধ্যমে সহিংসতা বা ধর্মীয় উন্মাদনা উসকে দেয়ার বিরুদ্ধে। আপনাদের মনে আছে- রামুতে ফেসবুকে পবিত্র কোরআন পুড়িয়ে দেয়ার মিথ্যা পোস্টের মাধ্যমে পুরো একটি বৌদ্ধ অধ্যুষিত গ্রামে আক্রমণ চালিয়ে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালানো হয়েছিল।

এ ধরনের ঘটনা আমাদের দেশে একাধিকবার ঘটেছে। অতিসম্প্রতি ছাত্রদের আন্দোলনের সময়ও আমরা দেখেছি কীভাবে অনলাইনে গুজব রটানোর মাধ্যমে সহিংসতা উসকে দেয়া হচ্ছিল। এই আইন ছাড়া আমরা এ ধরনের সহিংসতা উসকে দেয়ার ঘটনাগুলো কীভাবে প্রতিহত করব?

আমাদের প্রচলিত ফৌজদারি আইনে এ বিষয়ে কিছুটা বিধান আছে। সেই আইনের আওতায় আপনি যদি এমন কিছু বলেন বা লেখেন, যার কারণে কেউ অন্য কাউকে শারীরিকভাবে ক্ষতি করে, তখন আপনার বিরুদ্ধে সেই আইনে ব্যবস্থা নেয়া যায়।

এই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন না থাকলে আপনাকে কেউ হতাহত হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। আমাদের কি হতাহতের ঘটনা হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা উচিত? নাকি এ ধরনের ঘটনা যাতে ঘটতেই না পারে, সেদিকে মনোযোগ দেয়া উচিত? এ ধরনের আইন পৃথিবীর সব দেশেই বিদ্যমান, যুক্তরাষ্ট্রেও আছে।

অনেক ইউরোপিয়ান দেশে বিদ্বেষ ছড়ানো ও সহিংসতা উসকে দেয়ার বিরুদ্ধে আইন আছে। আমাদের এই আইনও সে রকমই।

আরেকটি আপত্তির বিষয় যা শোনা যাচ্ছে, তা হলে এই আইনের আওতায় অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য যে কাউকে ওয়ারেন্ট ছাড়া গ্রেফতার করা যাবে ও তল্লাশি চালানো যাবে। ওয়ারেন্টের প্রয়োজন তখনই পড়ে যখন অপরাধ ইতিমধ্যে ঘটে গেছে। কোনো অপরাধ সংগঠিত হওয়ার সময় ঘটনাস্থল থেকে ওয়ারেন্ট ছাড়াই গ্রেফতার ও তল্লাশি চালানো যায়।

এটি ফৌজদারি আইনের মৌলিক বিষয় আমাদের দেশসহ সব দেশেই। আপনি যদি কোনো চুরির বিষয়ে অভিযোগ করতে পুলিশকে ফোন করেন, পুলিশ কি তখন ওয়ারেন্টের জন্য বসে থাকে, নাকি তাৎক্ষণিকভাবে চোরকে গ্রেফতার করে চুরির মালামালের খোঁজে তল্লাশি চালাবে?

ঠিক সেভাবেই পুলিশ যদি অনলাইন হ্যাকিং সম্পর্কে তথ্য পায় ও হ্যাকারের অবস্থান খুঁজে পায়, তা হলে ওয়ারেন্টের জন্য অপেক্ষা করা উচিত নাকি তাৎক্ষণিক তাকে থামানো উচিত?

যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশিরভাগ দেশেই পুলিশ যদি কাউকে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের সময় অনলাইনে ট্র্যাক করতে পারে, তা হলে তাকে ওয়ারেন্ট ছাড়াই গ্রেফতার করতে ও তল্লাশি চালাতে পারে। শুধু অপরাধ সংগঠিত হয়ে যাওয়ার পর যদি গ্রেফতার বা তল্লাশি চালাতে হয়, তখন ওয়ারেন্টের প্রয়োজন পড়ে। অপরাধ সংগঠিত হওয়ার সময় ধরা পড়লে কখনই ওয়ারেন্টের প্রয়োজন পড়ে না।

সর্বশেষ রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করা নিয়ে যে ধারা সেটি নিয়ে আপত্তি তোলা হয়েছে। আমি একমত, এখানে আসলে আদালতকে ক্ষমতা দেয়া হয়েছে সত্য আর মিথ্যা নির্ণয় করার। কিন্তু এ ক্ষেত্রে আমাদের মনে রাখতে হবে দেশের সাম্প্রতিক ইতিহাস।

প্রেসক্লাব, সম্পাদক পরিষদসহ সাংবাদিকদের কোনো সংগঠনই কিন্তু তাদের নিজেদের নৈতিকতার সনদ বা আচরণবিধি প্রয়োগ করতে পারেননি। সম্পাদক পরিষদের বর্তমান প্রধান মাহফুজ আনাম, যিনি টেলিভিশনের পর্দায় স্বীকার করেছেন ১/১১-এর সময় আমাদের প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মিথ্যা ও উদ্দেশ্যমূলক সংবাদ প্রচারের কথা।

যুক্তরাষ্ট্র বা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে হলে তাকে বাধ্য করা হতো সাংবাদিকতা পেশা থেকে পদত্যাগ করতে। শুধু তাই নয়, তাকে আর কোনো দিন সম্পাদক বা সাংবাদিক হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হতো না।

বাংলাদেশে কিন্তু সম্পাদক পরিষদ উল্টো তার পক্ষ নিয়েই তাকে তাদের জেনারেল সেক্রেটারি নির্বাচিত করেছে। বিষয়টি আমাকে অবাক করে।

যেহেতু ইইউ ও যুক্তরাষ্ট্র মিশন এ আইন নিয়ে তাদের মতামত তুলে ধরেছে। আমি আশা করব, তারা মাহফুজ আনামের স্বীকারোক্তির পরও একটি প্রথমসারির পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বরত থাকা নিয়েও তাদের মতামত জানাবেন।

তা না হলে তাদের কার্যকলাপ হবে একপেশে ও আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার শামিল।

এ বিষয়টি থেকে আমরা সম্পাদক পরিষদের নৈতিকতা সম্পর্কে কি ধারণা পাই? পরিষ্কারভাবেই তাদের নৈতিকতা বলে কিছু নেই।

বস্তুত সম্পাদক পরিষদ বলতে চায়, তাদের সরকারের বিরুদ্ধে নোংরা, মিথ্যা প্রচারণা চালাতে দিতে হবে এবং সত্য অবলম্বন না করেই তাদের অপছন্দের রাজনীতিকদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করতে দিতে হবে। তারা যদি শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে এমন পরিকল্পনা করেন, তা হলে দেশের ভবিষ্যৎ কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়?

যেহেতু গণমাধ্যমের সম্পাদকরা তাদের নিজেদের তৈরি নৈতিক নির্দেশনাই মানতে রাজি নন, তা হলে আমরা সত্য-মিথ্যা নির্ধারণের ভার আদালতের হাতেই তুলে দিই। গ্রেফতার মানেই জেল নয়। সরকারের প্রমাণ করতে হবে যে আসামি জেনেশুনে মিথ্যা তথ্য প্রকাশ করেছেন। প্রমাণের দায়ভার সরকারের। যেসব সাংবাদিকের মিথ্যা সংবাদ ছাপানোর উদ্দেশ্য নেই, তাদের ভয়েরও কিছু নেই।

সম্পাদক পরিষদ যদি এসব ধারার সংশোধন চান, তা হলে তাদের নিজেদের নৈতিকতার নীতিমালা বাস্তবায়ন করতে হবে। যে সম্পাদক বা সংবাদকর্মী মিথ্যা সংবাদ ছেপেছেন, তাকে অবশ্যই দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিতে হবে এবং ভবিষ্যতে যাতে আর কোনো দিন সংবাদ তৈরি বা প্রচারের কাজ করতে না পারেন, সেই ব্যবস্থা করতে হবে।’



এ সংবাদ 350 জন পাঠক পড়েছেন
Social Media Sharing

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ শিরোনাম

সম্পাদকঃ মো.নাঈমুল ইসলাম
Email:naimulislam101@gmail.com
01754859801

Web- www.sylhetsangbad24.com, FB Page:Daily Amadershopno. এশিয়া ইন্টান্যাশনাল মার্কেট, জিন্দবাজার, সিলেট।
শিরোনাম :
১ম এসপিআই (সিলেট পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট) বিভাগীয় ক্রিকেট টুর্নামেন্ট-১৯ আগামী ২ মার্চ খেলাধুলা সমাজের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড থেকে যুবসমাজকে দূরে রাখে- যুবলীগ নেতা তারেক অবশেষে সুনামগঞ্জে প্রার্থী পরিবর্তন, চপলের বদলে মোবারক ৩২৮৫ দিন পর মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রদল সিলেটে হোম ভেন্যুর দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নামছে শেখ রাসেল কাদিয়ানীদের জলসা নিয়ে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক জলপ্রপাতে ময়লার স্তুপ, পরিষ্কারে নেমে পড়লেন দুই বিদেশী পর্যটক প্রধানমন্ত্রী জার্মানি সফরে যাচ্ছেন কাল প্রাণ খুলে তাই কবির ভাষায় বলা যায়, ‘আহা আজি এ বসন্তে শুভ জন্মদিন শাবিপ্রবি বানিয়াচংয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১২ বানিয়াচংয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১২ সিলেটে বাণিজ্য মেলা বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন কানাইঘাটের ‘লম্পট-মামুতাবলীগ জামায়াতের লেবাসে , চার্জশিট দাখিল দেশে প্রতি বছরে ক্যান্সারে মারা যান ৮৯ হাজার মানুষ কমলগঞ্জে ইয়াবাসহ আটক ১ সিলেটের দিনকাল-এর বর্ষপূর্তি উপলক্ষে শিক্ষানবিশ প্রতিনিধি আবশ্যক মহানগর ছাত্রদল নেতা রাজ আহমদ জালালের বাসায় পুলিশী তল্লাশীর নিন্দা সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জাকারিয়ার বিরোদ্ধে মিথ্যে মামলা: আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নিন্দা ৬ দশক ধরে আমার পরিবার সবসময় জনগণের পাশে থাকার চেষ্ঠা করেছে: ফজলে রাব্বী ডিজিটাল বাংলা গড়তে প্রকৃত মেধাবীদের মূল্যায়ন ব্যতীত বিকল্প পথ উন্মুক্ত নেই- ইউএনও আয়েশা হক জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি কালাম ও বালাগঞ্জ যুবদল নেতা রিমনসহ ২১৫ জনের জামিন কোম্পানীগঞ্জে ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়তে চান যুবলীগ নেতা জুয়েল দৈনিক সিলেটের দিনকাল’র সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিকে পিজিআইসি’র সংবর্ধনা সিলেটের দিনকাল-এর সম্পাদকম-লীর সভাপতি বেলালকে পরিচালনা পরিষদের সংবর্ধনা সিলেটের দিনকাল-এর বর্ষপূর্তি উপলক্ষে শিক্ষানবিশ প্রতিনিধি আবশ্যক সোনার বাংলা গড়তে নতুন প্রজন্মকে প্রাথমিক পর্যায়ে প্রস্তুত হতে হবে- যুবলীগ নেতা তারেক সিলেট পৌঁছে ঐক্যফ্রন্ট নেতারা বালাগঞ্জের পথে ড. মোমেনকে স্বাগত জানাতে আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি বেড়েছে ছিনতাই, আতঙ্কে নগরবাসী খালেদা জিয়ার বাড়ী উচ্ছেদ মামলার বিচারপতির বাড়ীতে ভুড়ি ভোজ করবেন ঐক্যফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ! সংবাদকর্মী হিসেবে কাজ করার সুযোগ ও তিন জেলা প্রতিনিধি আব্যশক যুবদল নেতা আদিল আহমদ রিমনের বাসা-বাড়িতে হামলা ও পুলিশী তল্লাশি: যুবদলের নিন্দা সংরক্ষিত সাংসদ হতে তৎপর সিলেটের এক ডজন নারী নেত্রী গোলাপগঞ্জে বাস-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২ রবিবার সিলেট আসছেন ঐক্যফ্রন্ট নেতারা প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা, প্রতিবাদে কলাম লেখকের ক্ষোভ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে যাত্রা শুরু করছে ফেঞ্চুগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মামলা পিছো ছাড়ছেনা যুবদল নেতা আদিল আহমদ রিমনসহ স্থানীয় নেতাকর্মীদের: নিন্দা প্রধানমন্ত্রীকে এডভোকেট মন্টুর ফুলেল শুভেচ্ছা ঘোষগাঁও টিলাগাঁও মানব কল্যাণ সামাজিক সংস্থার ১ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন বই উৎসব আনন্দের এবং গৌরবের- পৌর মেয়র রাবেল একটা সমস্যা নিয়ে শেখ হাসিনার দ্বারে যান, খালি হাতে ফেরার সুযোগ নেই ছাত্রদল ও ছাত্র শিবিরের নেতৃত্বাধীন সর্বদলীয় ছাত্রঐক্যের ধানের শীষের সমর্থনে নগরীতে বিশাল শোডাউন উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবারো নৌকাকে বিজয়ী করুন- যুবলীগ নেতা তারেক প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে তানিম গোলাপগঞ্জে নাঈমা পি.এস.সি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ ৫ পেয়েছে গোলাপগঞ্জের ভাদেশ্বরেরে ডা. শেখ আব্দুর রহিম স্মৃতি ট্রাষ্ট মেধা বৃত্তি বিতরণ সম্পন্ন সিলেটের মাঠে ৭০০ সেনা আত্মগোপনে’ থাকা ইমন চাইছে ধানের শীষে ভোট জনগনের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোগের প্রয়োজন- শিক্ষামন্ত্রী