,

কেয়ারটেকার সরকার প্রধান হওয়ার প্রস্তাব সম্পর্কে মুখ খুললেন ইউনুস

বাংলাদেশে ‘ওয়ান ইলেভেনের’ সময় দীর্ঘ মেয়াদের জন্য কেয়ারটেকার সরকার প্রধান হওয়ার আকাঙ্খার কথা জোর গলায় অস্বীকার করেছেন গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ ইউনুস।

এ বিষয়টি নিয়ে সম্প্রতি আবার নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়েছে গবেষক-লেখক মহিউদ্দীন আহমেদের একটি লেখাকে কেন্দ্র করে। এই লেখায় গবেষক মহিউদ্দীন আহমেদ দুজন সেনা কর্মকর্তার বরাত দিয়ে লিখেছেন, মুহাম্মদ ইউনুস কেয়ারটেকার সরকার প্রধান হওয়ার প্রস্তাবে রাজী না হওয়ার প্রধান কারণ ছিল এই সরকারের স্বল্প মেয়াদ।

কিন্তু ইউনুস সেন্টার থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে মুহাম্মদ ইউনুস বলেছেন, “সেনাবাহিনীর প্রস্তাবে আমি কেন রাজী হইনি এ বিষয়ে যে কারণ তারা উল্লেখ করেছেন তা একেবারেই কল্পনাপ্রসূত। একেবারে হদ্দ বোকা না-হলে একজন অরাজনৈতিক বেসামরিক ব্যক্তি সেনাবাহিনীর নিকট তাঁকে দীর্ঘমেয়াদের জন্য একটি সরকারের প্রধানের পদে রাখার এরকম আবদার করার কথা কখনো চিন্তা করতে পারবে না।”

মুহাম্মদ ইউনুসের দীর্ঘ বিবৃতিতে ওয়ান ইলেভেনের সময় কিভাবে সেনা প্রধান মইন ইউ আহমেদ তাঁকে কেয়ারটেকার সরকার প্রধান হওয়ার প্রস্তাব দেন, কিভাবে এ নিয়ে আরেকজন গুরুত্বপূর্ণ সেনা কর্মকর্তা জেনারেল মাসুদের সঙ্গে তার দীর্ঘ সময় বৈঠক হয় এবং কিভাবে তিনি এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন, তার বিস্তারিত বর্ণনা রয়েছে।

সেনা প্রধানের টেলিফোন:

বিবৃতিতে মুহাম্মদ ইউনুস বলছেন, ২০০৭ সালের ১০ই জানুয়ারি বিকেল সাড়ে পাঁচটায় তিনি সেনাপ্রধানের কাছ থেকে প্রথম টেলিফোন পান।

“আমি সে সময়ে আমার অফিসে গ্রামীণ ব্যাংকের দু’জন উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে আলাপ করছিলাম। সেনাপ্রধানের সাথে আমার কোনো পূর্ব পরিচয় ছিল না। তিনি তাঁর পরিচয় দিয়ে সরাসরি কাজের কথায় চলে এলেন। তিনি বললেন, দেশকে এই বিশৃঙ্খল অবস্থা থেকে রক্ষা করতে দেশ পরিচালনার জন্য সেনাবাহিনী একটি নতুন কেয়ারটেকার সরকার গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং তাঁরা আমাকে এই সরকারের প্রধান করতে চান।”

মুহাম্মদ ইউনুস দাবি করছেন, তিনি এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন এবং এজন্যে অন্য কাউকে খুঁজে নিতে বলেন।

“বোধহয় তিনি এমন একটি জবাবের জন্য প্রস্তুত ছিলেন না, বরং এমনটি আশা করছিলেন যে, আমি অত্যন্ত আগ্রহের সাথে তাঁর প্রস্তাবে রাজী হয়ে যাবো। তিনি তাঁর প্রস্তাবটা আবারো ঘুরিয়ে করলেন; সম্ভবত এমনটা ভেবে যে, আমি বোধহয় তাঁর প্রস্তাবটি বুঝতে পারিনি। আমি আবারো প্রস্তাবটা নাকচ করে দিলাম এবং বললাম যে, তাঁরা তাঁদের দ্বিতীয় পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়ে অগ্রসর হতে পারেন।”

মুহাম্মদ ইউনুসের ভাষ্য অনুযায়ী, এই টেলিফোন আলাপের সময় তার সামনে গ্রামীণ ব্যাংকের যে উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন, তারা পুরো ঘটনা শুনে হতভম্ব হয়ে যান।

“তাঁরা বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না যে, আমি এমন একটা প্রস্তাব সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেছি যা কিনা অন্য যে-কেউ হলে তাৎক্ষণিকভাবে লুফে নিতো। আমি আমার সহকর্মীদের বললাম যে, আমি একেবারে সঠিক কাজটিই করেছি। কিন্তু তাঁরা আমার জবাবে খুবই বিস্মিত ও হতাশ হলেন।”

জেনারেল মাসুদের সঙ্গে বৈঠক

মুহাম্মদ ইউনুসের সঙ্গে এরপর একজন উর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তার যে দীর্ঘ বৈঠক হয় এই কেয়ারটেকার সরকার প্রধান হওয়ার প্রস্তাব নিয়ে, বিবৃতিতে তিনি সেটিরও বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছেন।

“কিছুক্ষণ পর আমি আরেকটি টেলিফোন পেলাম। আমি তখনো অফিসে। জেনারেল মাসুদ বললেন যে, তিনি আমার সাথে দেখা করতে আমার বাসায় আসতে চান। যেহেতু সাক্ষাৎ করতে “না” করার কোনো উপায় ছিল না, আমি তাঁকে আটটায় আসতে বললাম।”

এরপর সেনাবাহিনীর সেসময়ের খুবই প্রভাবশালী একজন কর্মকর্তা জেনারেল মাসুদউদ্দীন চৌধুরী কয়েকজন সেনা কর্মকর্তা এবং জওয়ানকে নিয়ে মুহাম্মদ ইউনুসের বাসায় যান।

“জেনারেল মাসুদ ব্রিগেডিয়ার আমিন ও পাঁচ-ছয়জন জওয়ানসহ গ্রামীণ ব্যাংক কমপ্লেক্সে আমার বাসভবনে এলেন। আমি তাঁদের স্বাগত জানালাম এবং একটি ছোট কক্ষে নিয়ে গেলাম। তাঁরা নিজেদের পরিচয় দিলেন এবং অত্যন্ত বিনীতভাবে তাঁদের আসার উদ্দেশ্য জানালেন। আমি আমার অপারগতার কথা যতবারই বলতে থাকলাম, তাঁরাও তত বেশী বিনয়ী ও নাছোড়বান্দা হতে থাকলেন।”

এই আলোচনা নাকি চলেছিল প্রায় তিন ঘন্টা ধরে। কিন্তু মুহাম্মদ ইউনুস তাদের প্রস্তাবে রাজী না হয়ে বরং বিকল্প হিসেবে অন্য কিছু নাম প্রস্তাব করেন। সেই তালিকা থেকেই তাঁর বন্ধু ড: ফখরুদ্দীন আহমেদকে কেয়ারটেকার সরকারের প্রধান করা হয়।

জেনারেল মইন ইউ আহমেদের ভাষ্য

মুহাম্মদ ইউনুসকে কেয়ারটেকার সরকার প্রধান করার প্রস্তাব নিয়ে এই ঘটনার বর্ণনা মইন ইউ আহমেদের নিজের লেখা একটি বইতেও আছে।

‘শান্তির স্বপ্নে’ নামে বইটি প্রকাশিত হয় ২০০৯ সালে।

এতে জেনারেল আহমেদ লিখেছেন, বঙ্গভবনেই প্রেসিডেন্ট ইয়াজউদ্দীন তাদের দুটো নাম প্রস্তাব করেছিলেন, একজন শান্তিতে নোবেল-জয়ী মুহাম্মদ ইউনুস, অপরজন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ফখরুদ্দীন আহমেদ।

প্রফেসর ইউনুসকে প্রথম ফোনটি করেন জেনারেল আহমেদ।

প্রফেসর ইউনুস অস্বীকৃতি জানান।

“তিনি বললেন, বাংলাদেশকে তিনি যেমন দেখতে চান সেরকম বাংলাদেশ গড়তে খণ্ডকালীন সময় যথেষ্ট নয়। বাংলাদেশকে আরো দীর্ঘ সময় ধরে সেবা দিতে আগ্রহী। সেই মুহূর্তে ড. ইউনুসের কথার মর্মার্থ বুঝিনি……..পরবর্তী সময়ে আমরা দেখেছি তিনি একটি রাজনৈতিক দল করার ঘোষণা দিয়েছিলেন যদিও পরিস্থিতির কারণে তাকে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে হয়েছিল”।

ড. ফখরুদ্দীন আহমেদকে ফোন করে ঘুম থেকে জাগানো হয় গভীর রাতে।

প্রধান উপদেষ্টা হবার আমন্ত্রণ পেয়ে স্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার জন্য সময় চান তিনি।

আধ ঘণ্টা পর ফিরতি ফোনে সম্মতি জানান।

ওই দিনটিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঘটনাবহুল দিন নাইন-ইলেভেনের মত করে এক-এগারো হিসেবে অভিহিত করার সিদ্ধান্তও তারাই নিয়েছিলেন বলে বইতে লিখেছেন মইন ইউ আহমেদ।

এতদিন পরে কেন প্রতিবাদ:

যার লেখার সূত্র ধরে মুহাম্মদ ইউনুস ওয়ান ইলেভেনের ঘটনাবলী সম্পর্কে তাঁর ভূমিকার বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিয়েছেন, সেই গবেষক-লেখক মহিউদ্দীন আহমেদ অবশ্য প্রশ্ন তুলেছেন, এতদিন পর কেন মুহাম্মদ ইউনুস এই ব্যাখ্যা দিচ্ছেন।

বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, মুহাম্মদ ইউনুস যে দীর্ঘ মেয়াদের জন্য কেয়ারটেকার সরকারের প্রধান হতে আকাঙ্খা প্রকাশ করেছিলেন, সেই কথা বহুদিন ধরেই রাজনৈতিক মহলে আলোচনায় আছে। জেনারেল মইন ইউ আহমেদের লেখা বইতেও এর উল্লেখ আছে।

“এ বিষয়টা কিন্তু পাবলিক ডিসকাশনে ছিল। গুঞ্জন হিসেবেই হোক, যেভাবেই হোক। অধ্যাপক ইউনুস কেন এগারো বছর পর মুখ খুললেন আমি জানি না। তবে এই প্রথম এই বিষয়ে আমরা তার বক্তব্য পেলাম। এখন কে ঠিক বলছেন, কে বলছেন না, সেটা বিচার করা মুশকিল।”

মহিউদ্দীন আহমেদ জানান, প্রথম আলোতে প্রকাশিত যে লেখাটির সূত্র ধরে এই বিতর্ক শুরু হয়েছে, সেটি তাঁর প্রকাশিতব্য একটি গবেষণামূলক বইয়ের অংশ।

“এক এগারো নিয়ে আমি একটি গবেষণার কাজ করছি।সেখানে আমি এক এগারোর সঙ্গে সম্পর্কিত অনেকের সাক্ষাৎকার নিয়েছি। প্রথম আলোতে প্রকাশিত লেখাটি এই বইয়েরই খসড়ার একটি অংশ।”

মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, এই গবেষণার অংশ হিসেবে তিনি সাবেক সেনা প্রধান জেনারেল মইন ইউ আহমেদ এবং ডিজিএফআই এর সাবেক একজন কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফজলুল বারীর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন অতি সম্প্রতি। মুহাম্মদ ইউনুস সম্পর্কে তিনি যা লিখেছেন, তা মূলত এই দুজনের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে লেখা।

“এই সাক্ষাৎকারে তারা জানিয়েছেন, কেয়ারটেকার সরকারের প্রধান করার প্রস্তাব নিয়ে তারা মুহাম্মদ ইউনুসের কাছে যান, কিন্তু তিনি এত অল্প সময়ের জন্য কেয়ারটেকার সরকারের প্রধান হতে চাননি। তখন বিকল্প হিসেবে তারা ড: ফখরুদ্দীন আহমেদের কাছে যান।”

মহিউদ্দীন আহমেদ জানান, তিনি এই গবেষণার জন্য তিনি ওয়ান ইলেভেনের আরেক গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র জেনারেল মাসুদ উদ্দীন চৌধুরীর সাক্ষাৎকার নিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর সাক্ষাৎকার পাওয়া যায়নি।



এ সংবাদ 516 জন পাঠক পড়েছেন
Social Media Sharing

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ শিরোনাম

সম্পাদকঃ মো.নাঈমুল ইসলাম
Email:naimulislam101@gmail.com
01754859801

Web- www.sylhetsangbad24.com, FB Page:Daily Amadershopno. এশিয়া ইন্টান্যাশনাল মার্কেট, জিন্দবাজার, সিলেট।
শিরোনাম :
জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি কামাল ও বালাগঞ্জ যুবদল নেতা রিমনসহ ২১৫ জনের জামিন কোম্পানীগঞ্জে ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়তে চান যুবলীগ নেতা জুয়েল দৈনিক সিলেটের দিনকাল’র সম্পাদকম-লীর সভাপতিকে পিজিআইসি’র সংবর্ধনা সিলেটের দিনকাল-এর সম্পাদকম-লীর সভাপতি বেলালকে পরিচালনা পরিষদের সংবর্ধনা সিলেটের দিনকাল-এর বর্ষপূর্তি উপলক্ষে শিক্ষানবিশ প্রতিনিধি আবশ্যক সোনার বাংলা গড়তে নতুন প্রজন্মকে প্রাথমিক পর্যায়ে প্রস্তুত হতে হবে- যুবলীগ নেতা তারেক সিলেট পৌঁছে ঐক্যফ্রন্ট নেতারা বালাগঞ্জের পথে ড. মোমেনকে স্বাগত জানাতে আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি বেড়েছে ছিনতাই, আতঙ্কে নগরবাসী খালেদা জিয়ার বাড়ী উচ্ছেদ মামলার বিচারপতির বাড়ীতে ভুড়ি ভোজ করবেন ঐক্যফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ! সংবাদকর্মী হিসেবে কাজ করার সুযোগ ও তিন জেলা প্রতিনিধি আব্যশক যুবদল নেতা আদিল আহমদ রিমনের বাসা-বাড়িতে হামলা ও পুলিশী তল্লাশি: যুবদলের নিন্দা সংরক্ষিত সাংসদ হতে তৎপর সিলেটের এক ডজন নারী নেত্রী গোলাপগঞ্জে বাস-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২ রবিবার সিলেট আসছেন ঐক্যফ্রন্ট নেতারা প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা, প্রতিবাদে কলাম লেখকের ক্ষোভ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে যাত্রা শুরু করছে ফেঞ্চুগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মামলা পিছো ছাড়ছেনা যুবদল নেতা আদিল আহমদ রিমনসহ স্থানীয় নেতাকর্মীদের: নিন্দা প্রধানমন্ত্রীকে এডভোকেট মন্টুর ফুলেল শুভেচ্ছা ঘোষগাঁও টিলাগাঁও মানব কল্যাণ সামাজিক সংস্থার ১ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন বই উৎসব আনন্দের এবং গৌরবের- পৌর মেয়র রাবেল একটা সমস্যা নিয়ে শেখ হাসিনার দ্বারে যান, খালি হাতে ফেরার সুযোগ নেই ছাত্রদল ও ছাত্র শিবিরের নেতৃত্বাধীন সর্বদলীয় ছাত্রঐক্যের ধানের শীষের সমর্থনে নগরীতে বিশাল শোডাউন উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবারো নৌকাকে বিজয়ী করুন- যুবলীগ নেতা তারেক প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে তানিম গোলাপগঞ্জে নাঈমা পি.এস.সি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ ৫ পেয়েছে গোলাপগঞ্জের ভাদেশ্বরেরে ডা. শেখ আব্দুর রহিম স্মৃতি ট্রাষ্ট মেধা বৃত্তি বিতরণ সম্পন্ন সিলেটের মাঠে ৭০০ সেনা আত্মগোপনে’ থাকা ইমন চাইছে ধানের শীষে ভোট জনগনের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোগের প্রয়োজন- শিক্ষামন্ত্রী গোলাপগঞ্জে পৌরসভার উদ্যোগে মুক্তিযোদ্ধা সম্মানে সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর কটুক্তিকারী যুবদল ক্যাডার কালা সুমন ও তার দল গংদের বাচানোর জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন বাংলার বারোদ পত্রিকার সম্পাদক বাবর গোলাপগঞ্জে টুডে টাইমস’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন যুবলীগ নেতা তারেকের বিজয় দিবসে শুভেচ্ছা গোলাপগঞ্জে নৌকার সমর্থনে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের মতবিনিময় সভা গোলাপগঞ্জ পৌর প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন সিলেট পলিটেকনিক অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে লাখ টাকা দুর্নীতির অভিযোগ গোলাপগঞ্জে স্বরসতী মিনি নাইট ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন সিলেট-৬ আসনে নাহিদকে মহাজোটের চূড়ান্ত প্রার্থী করায় গোলাপগঞ্জে ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল সংখ্যাগরিষ্ঠের রায়ে খালেদার মনোনয়নপত্র বাতিল গোলাপগঞ্জে হামলায় আহত ছাত্রলীগের ইব্রাহীমের সুস্থতার জন্য দোয়া কামনা কাউন্সিলর সেলিমসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা সিলেট ৫ আসনে কার জন্য অপেক্ষা করছে নৌকা বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের প্রতি আহবান সিলেট মহানগর যুবদল নেতা ও প্রজন্ম ৭১’মহানগর সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রানার কারামুক্তি তে সংবর্ধনা। নতুন প্রজন্মের সমর্থন হোক ৭১’র চেতনার পক্ষে, ভোট হোক তাদের নতুন দিনের স্বপ্ন রচনায়- ড. রফিকুল তালুকদার ছাত্রলীগ নেতার জন্মদিন পালন সিলেট-৫ আসনে আওয়ামীলীগ এর মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন ফয়সাল আহমদ রাজ নির্বাচিত সরকারের অধীনেই নির্বাচন চাই: জি এম কাদের বাহুবলে চালকসহ নিহত ১ আহত ২